1. admin@dainikhabigonjeralo.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৭:৪৪ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এ আর হারুন অর রশিদ বাঘ বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপন করতে আহবান জানান আবুল হাসেম রতন ইসরায়েলি বর্বরতা কদরের রাতে জেরুজালেমে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মানবতার ফেরিওয়ালা মোহাম্মদ দিলু তালুকদার বীরগঞ্জে বজ্রপাতে এক মহিলার মৃত্যু টেক্সাসে লোকালয়ে বাঘ- গ্রেফতার সন্দেহভাজন মালিক সাংবাদিক শাহ মাইনুল হাসান খোকনের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা জাগ্রত তরুণ সোসাইটি মাধবপুর সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা গলাচিপায় গরু চুরির অভিযোগে যুবককে পিটিয়ে হত্যা সম্প্রতি চীনা রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য কূটনৈতিক শিষ্টাচার পরিপন্থী -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি

এক সপ্তাহ পর আবার লকডাউনের কারনে চিন্তিত নীলফামারীর নিম্ন আয়ের মানুষ

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত : বুধবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

সাইদুল ইসলাম সাহিন

নীলফামারী জেলা প্রতিনিধিঃ

দেশে দিন দিন করোনাভাইরাস শনাক্তের হার বৃদ্ধি পাওয়ায় গত সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করেছিল সরকার। কিন্তু কে শোনে কার কথা, স্বাস্থ্যবিধি মানাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে উপজেলা প্রশাসন তারপর কেউ মানছে না সরকারের লকডাউন। এজন্য আগামীকাল ১৪ এপ্রিল থেকে সরকার কঠোর ভাবে আবার লকডাউন ঘোষণা করছে। কেউ কেউ সরকারের কঠোর লকডাউনকে সাধুবাদ জানালে।

তবে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। ঋণের কিস্তি নিয়ে তারা আছে বিপদে। সরকারি চাকরিজীবি কয়েকজনের সঙ্গে কথা হলে তারা জানান, এক সপ্তাহ পর আবার কঠোর লকডাউনের সিদ্ধান্তটি সরকারের সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। মানুষ লকডাউন পুরোপুরি মানলে করোনা সংক্রমণের হার কমে যাবে বলে তাদের ধারণা। কিন্তু সাধারণ জনগণ গত সপ্তাহের লকডাউনে উদাসীন ছিলো।

এদিকে নিম্ন আয়ের মানুষজন চিন্তিত হয়ে পড়েছে কর্মহীন হওয়ার আশঙ্কায়।
বিভিন্ন এনজিও থেকে যারা ঋণ নিয়েছেন তারাও কিস্তি পরিশোধ নিয়ে চিন্তিত আছেন। হোটেল ব্যবসায়ী হানিফ খন্দকার, চায়ের দোকানি দিপু ও জাহিদ জানান, তারা বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়েছেন। গত সপ্তাহের লকডাউন মধ্যে ব্যবসা করে কিস্তি দিয়েছি, কিন্তু এবার শুনছি লকডাউন কঠোর ভাবে থাকবে তাহলে কিস্তি ও পরিবারে খাবার কীভাবে জোগাড় করবো এ নিয়ে তারা চিন্তিত।

নীলফামারীর প্রেসক্লাবের সভাপতি মো তাহমিনা হক ববি জানান, করোনা সংক্রমণ যে হারে বাড়ছে তাতে কঠিন লকডাউনের বিকল্প নেই। সরকারের এই সিদ্ধান্ত বাস্তবমুখী। এবার লকডাউন যাতে ব্যবসায়ীরা যথাযথভাবে মেনে চলে এই আহ্বান জানাব। সেই সাথে তৃণমূল পর্যায়ে খোজ নিয়ে জানা যায় যে,গ্রামের বেশিরভাগই মানুষ এই করোনা ভাইরাস সম্পর্কে উদাসীন। তারা শতকরা ৯৫% এই মাস্ক ব্যাবহার করছেন নাহ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত