1. admin@dainikhabigonjeralo.com : admin :
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের বাস্তবায়নে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে দূর্গা মন্দিরের নির্মান কাজের উদ্বোধন মাধবপুরে প্রবাসী একতা সমাজ – সেবা সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জের মাধবপুরের ছাত্রনেতার পক্ষ থেকে ৫০০টি হত দরিদ্র পরিবারের মাঝে ইফতার বিতরণ টঙ্গীতে হাসান উদ্দিন এর উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ নিউইয়র্কে বাংলাদেশি আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত নবীগঞ্জে দিলু তালুকদারের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত নীলফামারীতে গাছ চাপায় স্বামী-স্ত্রী ও বর্জ্রপাতে এক নারী নিহত জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে লালপুরে ছোট ভাইয়ের হতে বড় ভাই খুন,আটক-৫ অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের ফেরী কুষ্টিয়ায় সেফটি ট্যাংকের ভিতরে দুই নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

যৌনপল্লিতেও পড়েছে লকডাউনের প্রভাব পুরুষশূণ্য পল্লী আজ অসহায়

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত : সোমবার, ১৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫৪ বার পড়া হয়েছে

নাজমুল হোসেন,

গোয়ালন্দ উপজেলা প্রতিনিধিঃ

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ায় দেশের সর্ববৃহৎ যৌনপল্লিতেও পড়েছে লকডাউনের প্রভাব। করোনার সংক্রমণ রোধে দ্বিতীয় দফায় ১৪ এপ্রিল থেকে সারা দেশে ৭দিনের লকডাউন ঘোষণা করেছে সরকার।

সবাইকে ঘরে থাকার জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে। এই পরিস্থিতিতে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকান, ফার্মেসী, কাঁচাবাজার মাছ বাজার ছাড়া সব রকম ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ।করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে সারা দেশে লকডাউন চলছে এরই ধরাবাহিকতায় যৌনপল্লীতে খদ্দের আসা-যাওয়া বন্ধ রয়েছে।

লকডাউনের প্রভাবের মধ্যে আর্থিক সমস্যায় পড়েছেন যৌনকর্মীরা জরুরী প্রয়োজন ছাড়া কেউ এখান থেকে বাহিরে যেতে পারবেনা, বাহির থেকে কোন লোক পল্লীতে প্রবেশ করবেনা এনটাই নির্দেশনা রয়েছে প্রশাসনের পক্ষ থেকে। যেখানে প্রতিদিন হাজার লোকের আসা-যাওয়া ছিল সেখানে লকডাউনের কারণে খদ্দেরের দেখা নেই । পুরুষশূণ্য এই পল্লী আজ অসহায়। ফলে আর্থিক অনাটনের মুখে দৌলতদিয়ার যৌনকর্মীরা।

এই পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার পেতে তাঁদের ত্রাণ ও আর্থিক সাহায্য প্রয়োজন বলে জানান যৌনপল্লীর বাসিন্দারা। এ পল্লিতে সরকারি হিসেবে ১৬ শত ও বেসরকারি হিসেবে ৫হাজার যৌনকর্মী রয়েছেন।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ্ আল তায়াবীর জানান,সরকার থেকে আমাদের যেসব নির্দেশনা দিয়েছে আমরা তা বাস্তবায়ন করব এবং পল্লীর ভেতরে এর ব্যতিক্রম হবে না। যৌনপল্লীর বাসিন্দারা জরুরি প্রয়োজনে প্রধান ফটক দিয়ে বাইরে যেতে পারবে এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে প্রয়োজন মিটিয়ে তাকে ফিরতে হবে।

সরেজমিনে ১৮ই এপ্রিল ২০২১ শনিবার বেলা ১১টার দিকে পল্লীর ভেতরে দেখা যায় ,সেখানে কোনো ভিড় নেই, স্বাভাবিক সময়ে যেখানে যৌনকর্মীরা গলির ভেতরে দাঁড়িয়ে থাকেন খদ্দেরের জন্য, লকডাউনের কারণে তেমন চিত্র দেখা যায়নি। গলির ভেতরের দোকান গুলো ছিল বন্ধ। অল্প জায়গায়, ঘিঞ্জি পরিবেশে, বেশি মানুষের উপস্থিতি, সেই সঙ্গে পল্লীর বাসিন্দাদের অসচেতনতায় প্রাণঘাতী এ ভাইরাস এখানে ভয়াবহ রূপ নেয়ার আশঙ্কা আছে।

মোছাঃমর্জিনা বেগম,যৌনকর্মীদের সংগঠন মুক্তি মহিলা সমিতির সভানেত্রী বলেন, গত বছর লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে অনেক ত্রাণ ও আর্থিক সহযোগিতা পেয়েছি কিন্তু এবার তেমন কোন ত্রাণ সহযোগিতা পাচ্ছিনা। সঞ্চয় যা ছিল তা অনেক যৌনকর্মী ইতিমধ্যে খরচ করে ফেলেছে। সামনের দিনগুলো কিভাবে কাটবে বুঝতে পারছিনা। অসহায় নারী ঐক্য সংগঠনের সভানেএী ঝুমুর বেগম বলেন আমার সংগঠন থেকে কিছু সাহায্য দেয়া হয়েছে । আমাদের সরকার ও অন্যকোন সংগঠন যদি মেয়েদের পাশে না দাড়ায় না খেয়ে মরে যাবে।

গোয়ালন্দ উপজেলা নিবার্হী অফিসার আমিনুল ইসলাম বলেন,যৌনপল্লীতে যৌনকর্মীদের জন্য সরকারী ভাবে এখনও ত্রান সামগ্রী বরাদ্দ আসে নাই, বরাদ্দ আসলে অসহায়দের তালিকা করে ত্রান সামগ্রী দেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত