1. admin@dainikhabigonjeralo.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১, ০৭:১২ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
ঈদ-উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন এ আর হারুন অর রশিদ বাঘ বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ও সমাজ সেবক স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদ উদযাপন করতে আহবান জানান আবুল হাসেম রতন ইসরায়েলি বর্বরতা কদরের রাতে জেরুজালেমে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মানবতার ফেরিওয়ালা মোহাম্মদ দিলু তালুকদার বীরগঞ্জে বজ্রপাতে এক মহিলার মৃত্যু টেক্সাসে লোকালয়ে বাঘ- গ্রেফতার সন্দেহভাজন মালিক সাংবাদিক শাহ মাইনুল হাসান খোকনের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা জাগ্রত তরুণ সোসাইটি মাধবপুর সামাজিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদের শুভেচ্ছা গলাচিপায় গরু চুরির অভিযোগে যুবককে পিটিয়ে হত্যা সম্প্রতি চীনা রাষ্ট্রদূতের বক্তব্য কূটনৈতিক শিষ্টাচার পরিপন্থী -মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি

তীব্র গরমে অতিষ্ঠ হবিগঞ্জের জনজীবন

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ২৮ বার পড়া হয়েছে

নোমান আব্দুল্লাহঃ

গরমের তীব্রতায় অসহনীয় হয়ে পড়েছে হবিগঞ্জ জেলার জনজীবন। একটু শীতল পরশ পেতে পুকুরের দূরন্তপনায় মেতেছে শিশুরা। রোদ আর ভ্যাপসা গরমে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে হবিগঞ্জের শ্রমিক থেকে শুরু করে সকল স্তরের মানুষরা।

পবিত্র রমজান মাসে এ অসহনীয় তাপদাহে জনজীবনে নাভিশ্বাস হয়ে উঠেছে। গত কয়েক দিন ধরেই চলছে এ অবস্থা। তবে প্রচন্ড তাপদাহে বেশি দূর্ভোগে পড়েছে খেটে খাওয়া মানুষ। অসহনীয় গরমে হাঁসফাঁস করতে দেখা যায় লোকজনকে। এ ছাড়া তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে বাতাসের আদ্রতা কমে যাওয়ায় ভ্যাপসা গরমে মানুষ কাহিল হয়ে পড়েছে।

আজ মঙ্গলবার হবিগঞ্জের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, সূর্যের তাপ এত বেশি যে, হাঁটলেই গরম বাতাস অনুভূত হচ্ছে। অনেক কে দেখা গেছে যাত্রাপথে ছাতা মাথায় দিয়ে, বাসে কিংবা যানবাহনে হাতপাখার বাতাস দিয়ে গরম কমানোর চেষ্টা করছে। আবার অনেক জায়গায় দেখা গেছে লোডশেডিং এ ও অতিষ্ঠ জনগণ। জানা গেছে, প্রতিদিন নিয়মিত ৪/৫ ঘন্টায় লোডশেডিং এ ভুগছেন জনগণ। গরমে সবচেয়ে কষ্টে রয়েছে খেটে খাওয়া মানুষগুলো। এছাড়া শিশু ও বৃদ্ধদের নিয়ে রিতীমতো বিপাকে পড়েছে পরিবারের লোকজন। তীব্র তাপদাহ থেকে বাঁচতে লেবুর শরবত ও খাবার স্যালাইন কেনার হিড়িক পড়েছে। ইলেকট্রনিক দোকান গুলোতে দেখা গেছে ফ্যান ও এসির বিক্রি বেড়ে গেছে অনেকটা। আর ফুটফাটে দেখা গেছে হাতপাখা ও বিক্রি হচ্ছে বেশ।

মঙ্গলবার দিনের একাংশে শহরের বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে দেখা যায় গাছের ছায়ায় খেটে খাওয়া কয়েকজন মানুষ লাইন ধরে বসে আছেন। কারও গলায় গামছা পেঁচানো। কিছুক্ষণ পরপর গাঁ মুছছে। কেউবা মসজিদের ওজুখানায় গিয়ে মাথার মধ্যে পানি দিচ্ছে। বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে শিশুরা লাফ দিয়ে নিচে পড়ছে। কেউ কেউ শরীর ডুবিয়ে রাখছে নদীর পানিতে।
তেমনি নাম অনিচ্ছুক এক অটোচালক জানান, সকালে বের হয়েছেন। এত গরমে আর পারছেন না। তাই শহরের গাছের ছায়ায় একটু বিশ্রাম নিচ্ছেন। তাঁর সঙ্গে বসা ছিলেন আরেকজন দিনমজুর, তাঁর সাথে আলাপ করতে চাইলে নিজেকে অনেকটা ক্লান্ত বলে জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত