1. admin@dainikhabigonjeralo.com : admin :
শনিবার, ০৮ মে ২০২১, ০৮:১৮ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজ :
হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের বাস্তবায়নে ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে দূর্গা মন্দিরের নির্মান কাজের উদ্বোধন মাধবপুরে প্রবাসী একতা সমাজ – সেবা সংগঠনের পক্ষ থেকে ঈদ সামগ্রী বিতরণ হবিগঞ্জের মাধবপুরের ছাত্রনেতার পক্ষ থেকে ৫০০টি হত দরিদ্র পরিবারের মাঝে ইফতার বিতরণ টঙ্গীতে হাসান উদ্দিন এর উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে উপহার সামগ্রী বিতরণ নিউইয়র্কে বাংলাদেশি আমেরিকান পুলিশ এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্টিত নবীগঞ্জে দিলু তালুকদারের উদ্যোগে ইফতার ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত নীলফামারীতে গাছ চাপায় স্বামী-স্ত্রী ও বর্জ্রপাতে এক নারী নিহত জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধে লালপুরে ছোট ভাইয়ের হতে বড় ভাই খুন,আটক-৫ অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটের ফেরী কুষ্টিয়ায় সেফটি ট্যাংকের ভিতরে দুই নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু

দেশে প্রথমবারের মতো পালিত হচ্ছে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ জাতীয় দিবস

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশিত : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১
  • ৭৪ বার পড়া হয়েছে

দৈনিক হবিগঞ্জের আলো, নিউজ ডেস্কঃ

দেশে প্রথমবারের মতো পালিত হচ্ছে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ জাতীয় দিবস। বাংলাদেশের আওয়ামী লীগ সহ বিভিন্ন অঙ্গ সহযোগী সংগঠন এ দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালন করা হচ্ছে।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১ হাইকোর্ট বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ
মুজিবুর রহমানের সাতই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ পাঠ্যপুস্তকে নিয়ে আসা উচিত। এখনকার প্রজন্মকে এই ভাষণ শোনানো উচিত।

ঐতিহাসিক এই ভাষণের আধেয়
জানানো উচিত। সাতই মার্চকে ‘জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস’ ঘোষণা চেয়ে করা এক রিটের শুনানিতে
আদালত এই অভিমত দেন।
বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি
কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট
বেঞ্চে ওই শুনানি হয়।
সাতই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের স্থান
সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কেন্দ্রিক সরকারের
পরিকল্পনা, ওখানে থাকা স্থাপনার বিষয়ে আগামী
মঙ্গলবারের (১১ ফেব্রুয়ারি) মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষকে
জানাতো মৌখিক নির্দেশ দিয়েছিল আদালত।
৭ মার্চকে ঐতিহাসিক জাতীয় দিবস ঘোষণা করতে
হাইকোর্টের নির্দেশ
আগামী এক মাসের মধ্যে ঐতিহাসিক ৭ মার্চকে
জাতীয় দিবস ঘোষণা করে গেজেট জারির নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি এফ
আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল
কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের একটি ডিভিশন
বেঞ্চ এ রায় দেন।
আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন ড. বশির আহমেদ।
রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল
(ডিএজি) আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার।

আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার জানান, আদালত ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক জাতীয় দিবস ঘোষণা করে
আগামী এক মাসের মধ্যে গেজেট প্রকাশ করে
আদালতে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন। এ
আদেশের ফলে ৭ মার্চ জাতীয় দিবস হিসেবে পালিত
হবে। এর মাধ্যমে ভবিষ্যতে রাষ্ট্রীয়ভাবে দিবসটি
পালিত হবে। তিনি জানান, আদালত মুজিব বর্ষের
মধ্যে দেশের প্রত্যেকটি জেলা ও উপজেলা
কমপ্লেক্সে রাষ্ট্রীয় খরচে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি
নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া প্রাথমিক,
মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্য
পুস্তকে ৭ মার্চের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাস অন্তর্ভুক্তির কেন নির্দেশ দেওয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুলও
জারি করেছেন আদালত।
এ ছাড়া, ২০০৯ সালের এ সংক্রান্ত হাইকোর্টের আদেশ
কেন বাস্তবায়ন করা হয়নি, এক মাসের মধ্যে
লিখিতভাবে তা ব্যাখ্যা দিতে মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে
নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। পাঠ্যবইয়ে ১৯৭১ সালের
৭ মার্চের ইতিহাস কেন অন্তর্ভুক্ত করা হবে না-তা
জানতে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। মামলার
সংশ্লিষ্ট বিবাদীদের এ রুলের জবাব দিতে বলা
হয়েছে।
এর আগে, ২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর এক রিটের শুনানি
নিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কর্তৃক ১৯৭১ সালের ৭
মার্চে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঐতিহাসিক ভাষণের
স্থানে মঞ্চ পুনর্নির্মাণ করে সেখানে তার ভাস্কর্য
এবং ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক জাতীয় দিবস হিসেবে
কেন ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি
করেন হাইকোর্ট। সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ
সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত